Best Reseller Hosting Service in BD
মোট পোস্ট সংখ্যা: 91  »  মোট কমেন্টস: 5  
Facebook
Google Plus
Twitter
Linkedin

অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসের গতি ও পারফরম্যান্স বাড়াতে অসাধারন অ্যাপ্লিকেশন (বিস্তারিত বর্ণনা ও চিত্রসহ)

অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসের গতি ও পারফরম্যান্স বাড়ানোর জন্য Android Play Store এ শ’খানেক অ্যাপ্লিকেশন থাকলেও দেখা যায় এর বেশিরভাগই ফ্রি নয়। আজ আমি এমনই একটা অ্যাপ্লিকেশন দিচ্ছি যেটা দিয়ে খুব সহজেই আপনার অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসের গতি অস্বাভাবিক হারে বাড়িয়ে নিতে পারবেন। অ্যাপ্লিকেশনটির নাম Autokiller Memory Optimizer Pro। এটা একটা পেইড অ্যাপ্লিকেশন, Play Store এ যার মূল্য প্রায় $5। কিন্তু আমি এখানে অ্যাপ্লিকেশনটির APK ফাইল আপলোড করে দিচ্ছি, তাই কোন টাকা খরচ না করে ফ্রি-তেই ব্যবহার করতে পারবেন এই অসাধরন আ্যাপ্লিকেশনটি

প্রথমেই বলে নেই এই অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করতে হলে আপনার অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসটি অবশ্যই রুট করা থাকতে হবে। রুট করা ছাড়াও এটি ব্যবহার করা যাবে কিন্তু সেক্ষেত্রে Kernel Tweaks অপশনটি ব্যবহার করতে পারবেন না। তাই গতিও খুব বেশি একটা বাড়বেনা।  এবার এক নজরে দেখে নেয়া যাক কী কী আছে এই আ্যাপ্লিকেশনে।

মেমোরি ক্লিনার:

e-HostBD Hosting Service

অ্যাপ্লিকেশনটি চালু করলে প্রথমেই মেমোরি ক্লিনার চালু হবে। মেমোরি ক্লিনারের মাধ্যমে আপনি আপনার ফোনে চালু থাকা নির্দিষ্ট পরিমান অ্যাপ্লিকেশন সংখ্যা বাছাই করে দিতে পারবেন। সেই সংখ্যা অতিক্রম করলেই এই অ্যাপ্লিকেশনটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে পুরোনো চালু করা অ্যাপ্লিকেশনগুলো বন্ধ করতে থাকবে এবং আপনার বাছাই করা সংখ্যা বজায় রাখবে। ফলে কাজ করার জন্য আপনি আরো বেশি মেমোরি পাবেন এবং ফোনের গতিও বাড়বে। এই সুবিধাটি আ্যাপ্লিকেশনটির ফ্রি ভার্সনেও রয়েছে।

টুইকস অ্যান্ড টুলস:

এটাই মূলত এই অ্যাপ্লিকেশনটির সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য কারন এই অপশনগুলো আপনি ফ্রি ভার্সনে চালু করতে পারবেন না। এখানে থাকা Memory Reclaim এর মাধ্যমে আপনার মেমেরি তাৎক্ষনিকভাবে ক্লিন করতে পারবেন। আর Quick Restart এর মাধ্যমে আপনি খুব দ্রুত ফোনটি রিস্টার্ট করতে পারবেন। এটা ফোনটিকে পুরোপুরি বন্ধ না করে শুধুমাত্র আপনার অপারেটিং সিস্টেমটিকে রিস্টার্ট করে, ফলে খুব দ্রুত ফোন রিস্টার্ট হয়। কোন অ্যাপ্লিকেশন ইন্সটলের পর রিস্টার্টের প্রয়োজন হলে এর সাহায্যে রিস্টার্ট করে আপনি আপনার মূল্যবান সময় বাঁচাতে পারেন।

কার্নেল টুইকস:

কার্নেল টুইকস ই মূলত আপনার ফোনকে গতিশীল করে তুলবে। আমি আগেও বলেছি এই টুইকগুলো অ্যাপ্লাই করতে হলে আপনার ফোনকে অবশ্যই রুট করা থাকতে হবে। এবার দেখা যাক কী টুইকস রয়েছে এই অ্যাপ্লিকেশনে:

এসডি কার্ড টুইক: এটা আপনার এসডি কার্ডের ডাটা রিড ও রাইট করার গতি বাড়িয়ে তুলবে।আই.ও শিডিউলার: এটা আপনার কার্নেলের মান পরিবর্তন করে ফোনের গতি বাড়িয়ে তুলবে।পার্টিশন্স: এটা আপনার ফোনের এসডি কার্ডের সকল পার্টিশনের রাইট করার গতি বাড়িয়ে তুলবে।মেমোরি ম্যানেজমেন্ট: এটা আপানার ফোনের গতি বৃদ্ধি করতে পুরো ফোনের মেমোরিকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ম্যানেজ করবে।শিডিউলার: এটা আপনার টাস্ক শিডিউলারকে আরো গতিশীল করে তুলবে ফলে আপনি আরো সহজে মাল্টিটাস্কিং করতে পারবেন।ব্যাটারি: এই টুইকটি আপনার ব্যাটারি লাইফ বাড়িয়ে তুলবে।স্লিপার: বেশ কিছু সময় ধরে কোন অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার না করলে অ্যান্ড্রয়েড সিস্টেম সেটাকে স্লিপ মোডে নিয়ে যায়, ফলে অ্যাপ্লিকেশনটিতে আবার ফিরে গেলে সেটা পুনরায় লোড হয় এবং কিছু সময় নেয়। এই টুইকটি সেটা ডিজাবল করে সেই সময়টা বাঁচিয়ে দেয়। তবে এটা এনাবল করলে আপনার ব্যাটারি একটু বেশি খরচ হবে।ইউ.আই: এটা আপনার ফোনের ম্যাক্সিমাম ইভেন্ট বাড়িয়ে ৬০ করে দেয়। ফলে হোমস্ক্রিন এ স্ক্রল আর ট্রানজিসান ইফেক্টস এর গতি বেড়ে যায়।নেটওয়ার্ক: এই টুইকটি আপনার মোবাইল ইন্টারনেট এর গতি বাড়িয়ে তুলবে।ওয়াই-ফাই: এটা আপনার ওয়াইফাই স্ক্যানিং এর বিরতির সময় বাড়িয়ে ৩ মিনিট করে দেয়, অ্যান্ড্রয়েড সিস্টেমে যেটা মাত্র ৫ সেকেন্ড থাকে। ফলে আপনার ব্যাটারি লাইফ আরো বাড়বে।

এসব টুইক ছাড়াও আপনি এই অ্যাপ্লিকেশনটির সাহায্য যে কোন অ্যাপ্লিকেশন কিংবা সিস্টেম সার্ভিস বন্ধ করতে পারবেন যেটা আপনি সাধারনত টাস্ক কিলার দিয়ে করে থাকেন। অর্থাৎ টাস্ক কিলারের কাজও আপনি এই অ্যাপ্লিকেশনটির সাহায্যে করতে পারবেন ফলে আলাদা কোন টাস্ক কিলার অ্যাপ্লিকেশনের প্রয়োজন হবেনা।

সতর্কতা:

উপরের টুইকগুলো আপনাকে অবশ্যই বেশ সতর্কতার সাথে এনাবল করতে হবে। কারণ অসতর্কতাবশতঃ এর যেকোনটি আপনার ডিভাইসের ক্ষতি করে ফেলতে পারে। টুইকগুলোর ফলে আপনার ডিভাইসের কোন ক্ষতি হলে অ্যান্ড্রয়েড কথন বা এই টিউনের লেখক দায়ী নয়। তবে যেকোন প্রকার ক্ষতি এড়ানোর জন্যও অ্যাপ্লিকেশনটিতে একটি বিশেষ অপশন দেয়া আছে। আপনার ফোনের যেকোন ক্ষতি এড়াতে কার্নেল টুইকস অপশন থেকে “2 min delay before apply” অপশনটি এনাবল করে দিন।

এর ফলে আপনার ফোন চালু করার ২ মিনিট পর টুইকসগুলো অ্যাক্টিভেট হবে। টুইকসগুলোর সাথে এই অপশনটি এনাবল করে আপনার ফোন রিস্টার্ট করার ২ মিনিট পর যদি দেখতে পান আপনার ফোন ঠিকমত কাজ করছেনা তাহলে আপনাকে বুঝে নিতে হবে টুইকসের কারনেই সমস্যা হয়েছে। আপনি দ্বিতীয়বার যখন রিস্টার্ট দেবেন তখন ফোন স্টার্ট হবার ২ মিনিটের মাঝেই অ্যাপ্লিকেশনটিতে ঢুকে টুইকসগুলো ডিজাবল করে দিতে পারবেন। আর যদি প্রথমবার রিস্টার্ট দেয়ার ২ মিনিট পর দেখেন সবকিছু ঠিকঠাকভাবেই চলছে তাহলে আপনার আর ভয়ের কোন কারন নেই।

তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অ্যাপ্লিকেশনটির জন্য ফোনের কোন ক্ষতি হয়না। ২ মিনিট অপেক্ষার অপশনটি মূলত বাড়তি সতর্কতার জন্যই দেয়া হয়েছে। আপনি মোটামুটি নিশ্চিন্তেই অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করতে পারেন।

ডাউনলোড:

অ্যাপ্লিকেশনটি যদি আপনার পছন্দ হয়ে থাকে তাহলে নিচে ক্লিক করে অ্যাপ্লিকেশনটির প্রো ভার্সন ফ্রি তে ডাউনলোড করে নিন।

ডাউনলোড লিংক






eHostBD Hosting

মন্তব্য করুন