Best Reseller Hosting Service in BD

আপনারা দেখছেন "স্বাস্থ্য বিষয়ক" এর অন্তর্ভুক্ত পোস্টসমূহ

চকলেট খেলে কমে ওজন, বাড়ে আয়ু

চকলেটপ্রেমীদের জন্য সুখবর। নতুন সমীক্ষায় উঠে এসেছে যে চকলেট খেলে ওজন কমে আর আয়ু বাড়ে।ইয়গভ নামের একটি এজেন্সির করা সমীক্ষায় দেখা গেছে, ৮৬% ক্ষেত্রে স্লিম চেহারার যারা চকলেটের স্বাদ থেকে নিজেদের বঞ্চিত করেননি তারা সহজে ওজনও কমিয়েছেন। ২১০০ […]

নিয়মিত পেঁপে খাবেন যে ৫টি কারণে

পেঁপে একটি সুস্বাদু ও উপকারী ফল। সহজলভ্য এবং কম দামে পাওয়া যায় বলে এর জনপ্রিয়তাও অনেক। পেঁপে কাঁচা ও পাকা দুই ভাবেই খাওয়া যায়। কাঁচা পেঁপে সালাদে ও রান্নায় এবং পাকা পেঁপে ফল হিসেবে খাওয়া যায়। পেঁপেতে ক্যালোরির […]

ঘুমের মধ্যে মস্তিষ্ক সাফাই, জেনে কিভাবে

যারা ঘুমাতে ভালবাসে, তাদের ঘুমকাতুরে, কুম্ভকর্ণ – কত কীই না শুনতে হয়। তা ঘুম কি খুব খারাপ কাজ? ঘুমানো মানে কি সময় নষ্ট করা? বিজ্ঞানীরা মোটেই তা মনে করছেন না।বিশ্ববিখ্যাত ‘সাইন্স’ পত্রিকায় ঘুমের উপকারিতার বিশদ বিবরণ ছাপা হয়েছে। […]

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে যে ৫টি খাবার অবশ্যই এড়িয়ে চলা উচিত

অনেককেই বলতে শোনা যায় প্রেসার বেড়ে গেছে। এই প্রেসার বেড়ে যাওয়াটাই হলো উচ্চ রক্তচাপ। মানুষের স্বাভাবিক রক্তচাপের মাত্রা বেড়ে যাওয়ার প্রবণতাটাকে উচ্চ রক্তচাপ বলা হয়। উচ্চ রক্তচাপ বংশগত কারণে হতে পারে৷ বাবা মায়ের থাকলে সন্তানেরও বয়সের সাথে সাথে […]

যে ৫ টি কারণে প্রতিদিন খেতে হবে রসুন

রান্নায় রসুন না দিলে কী ভালো লাগে খেতে? স্বাদে ও গন্ধে অনন্য এই খাবারটি মশলা হিসেবে বিভিন্ন রান্নায় ব্যবহৃত হয়। রসুন স্বাস্থ্যের জন্য বিস্ময়কর একটি উপাদান। রসুনে আছে ভিটামিন সি, পটাশিয়াম, আঁশ,ফলিক এ্যাসিড, ক্যালসিয়াম, আয়রণ এবং প্রোটিন। রসুনে […]

সুস্থতার জন্য কখন খেতে হবে এবং কী খাবেন?

নিয়মিত একটা নির্দিষ্ট সময় মেনে খাওয়াদাওয়া করলে আপনার খাদ্যভ্যাস চলে আসবে শৃঙ্খলার মধ্যে এবং সুস্বাস্থ্য বজায় রাখা হয়ে উঠবে অনেক সহজ। বর্তমান সময়ে আমাদের বিভিন্ন রকম অসুস্থতার মূল কারণই হলো খাওয়াদাওয়ার অনিয়ম। দিনে ঠিক সময়ে পেটপুরে খাওয়ার বদলে […]

সকালে এক গ্লাস উষ্ণ লেবু পানির ১০টি স্বাস্থ্য উপকারিতা

শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরেই লেবুর উপকারি গুণাগুণ মানুষের জানা। এর মাঝে একটা প্রধান উপকারিতা হলো ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস ইত্যাদির তৈরি করা রোগ বালাই দূরীকরণ এবং শরীরের সার্বিক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি। আরেকটা হলো হজম শক্তি বাড়ানো এবং যকৃৎ পরিষ্কারের […]

লাল মাংসের ৪ টি স্বাস্থ্য উপকারিতা

কোরবানির ঈদ মানেই তো গরু আর খাসী খাওয়ার হিড়িক! প্রতিদিন বেলায় বেলায় গরুর মাংসের ভুনা অথবা কাবাব লেগেই থাকে। সঙ্গে খাসীর কাচ্চি, লেগ রোস্ট এসব তো আছেই। লাল মাংস শরীরের জন্য ক্ষতিকর এটা আমরা সবাই জানি। কিন্তু লাল […]

হজমের সমস্যা দূর করার ঘরোয়া ৫টি উপায়!

ঈদ মানেই খাওয়া দাওয়ার ধুম পড়ে যায়। নিজের ঘরে অনেক রকমের খাবার তো থাকেই। সেই সাথে বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়- স্মজনের বাসায় বেড়াতে গেলে অনিচ্ছা সত্ত্বেও বেশি খাওয়া হয়। ফলে অতিরিক্ত চর্বি, তেল-মশলার প্রভাবে হজমে গন্ডগোল দেখা দেয়। ঈদের দিন […]

হাত তালি দেয়ার ৮ রকম স্বাস্থ্য উপকারিতা

শিরোনাম পড়েই নিশ্চয়ই চোখ কপালে উঠে গেছে? ভাবছেন হাত তালির আবার স্বাস্থ্য উপকারিতা আছে নাকি! শুনতে হাস্যকর লাগলেও সত্যি যে হাত তালিরও আছে অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা। এমনকি দুই হাতের তালু দিয়ে সৃষ্ট শব্দগুলো ভোর বেলা গান শোনার চাইতেও […]

লাল মাংস কেন খাবেন, কেন খাবেন না এবং হরমোন বিতর্ক

আগামী ১৬ তারিখ ঈদ। এই ঈদের মূল আকর্ষণ হল, লাল মাংস বা রেড মিট। এখন আমরা সবাই জানি যে, লাল গোশত শরীরের জন্য ক্ষতিকারক। আপনি জেনে অবাক হবেন যে, এটি একটি ঢালাও তথ্য। যা হোক, আমাদের পরিমিতি জ্ঞান […]

প্রতিদিন ১টি কাঁচা মরিচের ১৩টি স্বাস্থ্য উপকারিতা!

প্রতিদিন যাদের ভাতের সাথে একটি কাঁচা মরিচ না খেলে চলেই না তাদের জন্য সুখবর হচ্ছে কাঁচা মরিচ স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। মরিচকে ঝাল বানায় এর বিশেষ উপাদান ক্যাপসাইকিন। কাঁচা মরিচ সাধারণত কাঁচা, রান্না কিংবা বিভিন্ন ভাজিতে দিয়ে খাওয়া […]

ভালো ঘুমের ৯টি গোপন রহস্য!

সারাদিন আপনার হাতে থাকে নানারকম কাজ-কর্ম! চোখ বুজে আসছে ক্লান্তিতে, অথচ ফুরসতই মেলেনা দু-দন্ড শান্তিতে ঘুমিয়ে নেবার। আবার ঘুমোতে গেলেই দেখা যায় অন্য সমস্যা! সারারাত বিছানায় এপাশ-ওপাশ করেই কেটে যায়। হতচ্ছাড়া ঘুমের দেখাই মেলেনা। কিন্তু না ঘুমোলে শরীর […]

বর্তমান পৃষ্ঠা ৮১০

ভালো ঘুমের ৯টি গোপন রহস্য!

sleeping tips-anytechসারাদিন আপনার হাতে থাকে নানারকম কাজ-কর্ম! চোখ বুজে আসছে ক্লান্তিতে, অথচ ফুরসতই মেলেনা দু-দন্ড শান্তিতে ঘুমিয়ে নেবার। আবার ঘুমোতে গেলেই দেখা যায় অন্য সমস্যা! সারারাত বিছানায় এপাশ-ওপাশ করেই কেটে যায়। হতচ্ছাড়া ঘুমের দেখাই মেলেনা। কিন্তু না ঘুমোলে শরীর টিকবে কী করে? হাতের এত এত কাজই বা হবে কী করে? আর তাই প্রতিদিন একটা লম্বা এবং শান্তিপূর্ন বিশ্রাম খুবই দরকার।
ভালো ঘুমের গোপন রহস্য!-

সারাদিন মানসিক অবস্থা কেমন ছিল তার ওপরেই মূলত নির্ভর করে আপনার রাতের ঘুমটা কেমন হবে! তবে তার বাইরেও আরো কিছু শত্রু রয়েছে আপনার যেগুলো খুব সহজেই আপনার ঘুমের বারোটা বাজিয়ে দিতে পারে। আর তাই ভালো ঘুমের জন্যে খুব সাধারন কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে আপনাকে প্রতিদিন। মানুষভেদে ঘুমের সময়েরও রকমফের হয়। তাই প্রথমেই জেনে নেওয়া জরুরী আপনার ঠিক কতটা ঘুম দরকার। দরকারের অতিরিক্ত সময় ঘুমিয়ে থাকাটাও কিন্তু পরে নিদ্রাহীনতার কারণ হতে পারে!

সময় মেনে ঘুম!
কেবল পরিমাণমতন ঘুমালেই চলবেনা! ঘুমোতে হবে ঠিক সময়েও। একটা নির্দিষ্ট সময় মেনেই ঘুমোতে হবে রোজ। গবেষনায় দেখা গেছে- একই পরিমাণ ঘুম দিনের নির্দিষ্ট একটি সময়ে প্রতিদিন ঘুমালে বেশি ফল পাওয়া যায়! কেবল ঘুমানোই নয়। ঘুম থেকে উঠতেও হবে রোজ একই সময়ে! আর সময়ের আগেই যদি কখনো ঘুম আসে তবে নিজেকে ব্যস্ত রাখুন অন্য কোন কাজে, যেমন- বন্ধুদের সাথে আড্ডা মারা, রান্না করা, টিভি দেখা!

ক্ষতিপূরণ!
কোনদিন যদি রাতে ঘুমোতে খানিকটা দেরীও হয়ে যায়, পরদিন যে কোনো একটা সময় ঘুমিয়ে সেটাকে পুষিয়ে দিতে হবে। শরীর যেন তারতম্যটা একেবারেই বুঝতে না পারে!

ইনসোমনিয়া!
ঘুম যদিও শরীরকে রিচার্জ করার অন্যতম একটা মাধ্যম হিসেবে ধরা হয়, ইনসোমনিয়ায় আক্রান্তদের ক্ষেত্রে সেটা খানিকটা সমস্যার সৃষ্টি করে। তবে ইনসোমনিয়ায় আক্রান্তরা বিকেলবেলা ৩০ মিনিটের জন্যে ঘুমিয়ে এই সমস্যা দূর করতে পারেন।

আলো!
মেলাটোনিন! আপনার মস্তিষ্কে সময়ে-অসময়ে ঘুমভাব তৈরী করে এই হরমোনটিই! আর এটি কাজ করে আলোর স্বল্পতায়। আর তাই দিনের বেলা ঘুমাতে চাইলে বেরিয়ে পড়ুন বাইরে, থাকুন ঝলমলে আলোতে, টিভি দেখুন, কম্পিউটারে বসুন, বাসা বা অফিসে ব্যবহার করুন উজ্জ্বল আলো! আর তাহলেই আপনি মুক্তি পাবেন অসময়ের ঘুম থেকে। তবে রাতের বেলায় কিন্তু আবার এর ঠিক উল্টোটা করতে হবে। রাতে খুব একটা উজ্জ্বল আলো ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। রাতের বেলায় সহজে ঘুম আসতে তাহলে আর কোন সমস্যাই হবে না।

বিছানা!
বিছানা আপনার ঘুমোনোর স্থান! আর তাই বিছানাকে রাখুন শোরোগোল থেকে দূরে, ঠান্ডা এবং আরামদায়ক! কেবল ঘুম আর ভালো কিছু সময় কাটানোতেই বিছানার ব্যবহার করুন। তাহলে বিছানার কাছে গেলেই আপনার শরীর ঘুমানোর জন্য প্রস্তুত হয়ে যাবে! ঘুমোতে যাবার আগে শুনুন হালকা সুরের গান, পড়ুন গল্পের বই! রিল্যাক্সে রাখুন শরীরকে! ঘুম আসবে আপনা আপনিই!

খাবার!
খাবারের ক্ষেত্রে কিছু নিয়ম মেনে চলুন। এ্যালকোহল থেকে দুরে থাকুন। রাতের কাবারে খুব ভারী কিছু খাওয়া থেকে বিরত থাকুন! অতিরিক্ত পানি আর ধুমপানটাকেও একটু পরিহার করুন। ঘুমোনোর আগে ক্ষুধাবোধ হলে কার্বোহাইড্রেটজাতীয় খাবার, যেমন- স্যান্ডুইচ, কলা ইত্যাদি খান। কার্বোহাইড্রেট আপনার ভেতরে ঘুমভাব তৈরী করবে!

দুশ্চিন্তা!
দুশ্চিন্তা, রাগ, ভয়- এগুলোর যেকোনটাই আপনার ঘুমে সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে! তাই যতটা পারা যায় এগুলোকে পরিহার করাই ভালো! এজন্যে-
১. দুশ্চিন্তার ব্যাপারগুলো নোট করে রাখা
২. যোগব্যায়াম করা
৩.পরিবারের সবার সাথে শেয়ার করা
৪. ঘুমের আগে বড় করে শ্বাস ছাড়া
ইত্যাদি করতে পারেন!

রাতের ডিউটি!
অনেকেরই কর্মক্ষেত্রে রতেরবেলা ডিউটি করে থাকেন। তাদেরকে পুরো ছকটাকেই উলটো করে সাজাতে হবে। রাতের বদলে জাগতে হবে রাতে! আর এজন্যেই মেনে চলতে হবে নিচের নিয়মগুলো-
১. রাতে কাজের সময় কফি খাওয়া
২. খানিক বাদেই এদিক-ওদিক হেঁটে আসা
৩. ছুটির দিনগুলোতে বেশী করে ঘুমানো
৪. ঘরে দিনের বেলায় পর্দা ব্যবহার করে আলো কম রাখা
৫. শব্দ থেকে দুরে থাকা।
আর তাহলেই এই রাতের ডিউটির সমস্যাটাকে খুব সহজেই এড়িয়ে চলা যাবে।

হঠাৎ ঘুম ভেঙে যাওয়া!
হটাৎ করে ঘুম ভেঙে যেতেই পারে। যদিও ঘুম ভেঙে যাবার পর আবার ঘুমোতে যাওয়াটা বেশ কষ্টকর একটা ব্যাপার, তারপরেও নিজেকে ঠিক রাখতে আপনাকে সর্বোচ্চ চেষ্টা করতে হবে ঘুমোতে যাবার। শরীরকে রিল্যাক্স বোধ করাতে হবে। গভীর শ্বাস এবং মেডিটেশন করলেও এসময় কাজ হতে পারে।

ডক্টর!
এতকিছু করবার পরেও যদি আপনার ঘুমে সমস্যা হযে থাকে, ডাক্তারকে দেখান। মেনে চলুন তার পরামর্শ! তবে স্লিপিং পিল থেকে দুরে থাকাটাই আপনার শরীরের পক্ষে ভালো!