Best Reseller Hosting Service in BD

আপনারা দেখছেন "স্বাস্থ্য বিষয়ক" এর অন্তর্ভুক্ত পোস্টসমূহ

অকালে কপালে ভাঁজ প্রতিরোধে করণীয়!

কপালে বা চোখের পাশে ভাঁজ পড়া বয়স বাড়ার একটি স্বাভাবিক লক্ষণ। কিন্তু কারও কারও অপেক্ষাকৃত কম বয়সেই অনেক ভাঁজ পড়ে, কেউ আবার অনেক বয়সেও টান টান ত্বকের অধিকারী হয়ে থাকেন। এই পার্থক্য কেন হয়? বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে […]

মাত্র তিন কাপ চায়ে সুস্থতার টিপস

ক্লান্তি দূর করতে, চাঙ্গা হতে কিংবা আড্ডার উপাদানে চায়ের বিকল্পের কথা ভাবা যায় না।কিন্তু, এর বাইরেও যে চায়ের অনেক গুণাগুণ আছে সে সর্ম্পকে আমরা কতাটুকুই বা জানি।চায়ের মনভোলানো স্বাদে যদি মাতোয়ারা হয়ে থাকেন, এবার তাহলে গুণগুলোর সঙ্গেও পরিচিত […]

উচ্চ রক্তচাপ কমাতে ফল খান

বয়স একটু বাড়লে ব্লাড প্রেশার বা উচ্চ রক্তচাপ নিয়ে দুশ্চিন্তার শেষ থাকে না। নিয়মিত ওষুধ খাওয়ার বাধ্যবাধকতা তো আছেই, পছন্দের অনেক খাবারেও জারি হয় নিষেধাজ্ঞা। তা ছাড়া অনেক সময় এমনও ঘটে যে উচ্চ রক্তচাপের বিষয়টি বোঝা যায় না, […]

তরুণ থাকতে চাইলে ৩টি খাবার এড়িয়ে চলুন

গায়ের রং যেমন হোক, মসৃণ আর যৌবনদীপ্ত রাখতে চান? নিজের খাবার প্লেটে নজর দিন। খাদ্য দেহের জন্য যেমন গুরুত্বপূর্ণ ঠিকই, তবে পুষ্টি বিবেচনা করে কিছু খাবার প্লেটে না তোলা আরো গুরুত্বপূর্ণ। কিছু খাবার থেকে মুখ ফিরিয়ে নিলে বা […]

স্মৃতিশক্তি প্রখর করে তুলুন ৭টি উপায়ে

“দুনিয়ার সবকিছুর ভান্ডার এবং রক্ষক হল আমাদের স্মৃতি”- আমার কথা নয়, রোমান দার্শনিক সিসেরোর বাণী এটা, যা গ্রন্থিত রয়েছে তাঁর “দ্যা ওরাটোরে” রচনায়। সেই প্রাচীন সময়ে স্মৃতিশক্তির প্রয়োজনীয়তা ছিল বটে, কিন্তু বর্তমানকালে তার প্রয়োজনীয়তা আরও প্রকট হয়ে দেখা […]

নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ কমানোর ৫টি সহজ ধাপ

অনেকেরই নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ হয় এবং এই বিব্রতকর পরিস্থিতি কি করে এড়াবেন তা নিয়ে দিশাহারা হয়ে যান অনেকেই। কিন্তু একটু সচেতন থাকলেই কিছু সহজ নিয়ম মেনে এই পরিস্থিতি এড়ানো সম্ভব। বেশিরভাগ সময়ে নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ সৃষ্টির কারণ হল মুখের ভেতরে […]

রক্তচাপের ওষুধে ক্যানসারও উপশম হয়

রক্তচাপের ওষুধ ক্যানসারের বিরুদ্ধেও কাজ করে। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সচরাচর যে ওষুধ খাওয়া হয় তা শক্ত টিউমারের মধ্যে রক্তনালী খুলে ক্যানসার রোধ করতে সহায়তা করে।বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, প্রচলিত ক্যানসাররোধী ওষুধের পাশাপাশি সেবন করলে এটা আয়ু বৃদ্ধিতেও সহায়ক হতে […]

ওষুধ ছাড়াই রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের ৮টি উপায়

প্রতি দশ জনের মধ্যে সাত জন মানুষ উচ্চ রক্তচাপ জনিত কারণে হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোক করার ঝুঁকিতে থাকেন। সারাদিন এক যায়গায় বসে কাজ করা, ব্যায়ামের অভাব এবং অতিরিক্ত লবণ খাওয়ার কারণে রক্ত চাপ বেড়ে যাওয়ার প্রবণতা বাড়ে। অতিরিক্ত […]

নিছের নিয়মগুলো মেনে চলুন কিডনি বাঁচান

১. প্রস্রাব আটকে রাখা। ২. পর্যাপ্ত পানি পান না করা। ৩. অতিরিক্ত লবন খাওয়া। ৪. যেকোন সংক্রমনের দ্রুত চিকিৎসা না করা। ৫. মাংস বেশি খাওয়া। ৬. প্রয়োজনের তুলনায় কম খাওয়া। ৭. অপরিমিত ব্যথার ওষুধ সেবন। ৮. ওষুধে সেবনে […]

মানুষের স্মৃতিশক্তি দিন দিন কমে যাচ্ছে ইন্টারনেট এর বদৌলতে

আগের প্রজন্মের মানুষ তথ্য মনে রাখতে পারলেও বর্তমান প্রজন্ম মস্তিষ্ক না খাটিয়ে তার জন্য সার্চ করছে ইন্টারনেটে। যুক্তরাজ্যের গবেষকেরা সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখেছেন যে, মানুষের স্মৃতিশক্তি দ্রুত কমিয়ে দিচ্ছে ইন্টারনেট। এক খবরে এ তথ্য জানিয়েছে প্রেস ট্রাস্ট অব […]

হাঁটলে ব্রেস্ট ক্যানসারের ঝুঁকি কমে

হাঁটলে ব্রেস্ট ক্যানসারের ঝুঁকি কমে। মেনোপজ বা রজোনিবৃত্তির পর মেয়েরা দিনে এক ঘণ্টা হাঁটলে তাদের ব্রেস্ট ক্যানসার বা স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি উল্লেখযোগ্য হারে হ্রাস পায়। ৭৩ হাজার নারীকে ১৭ বছর ধরে পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেছে, সপ্তাহে […]

জনপ্রিয় হচ্ছে কাজের সাথে শরীরচর্চা

বিশ্বে বেশিরভাগ কাজ এমনকি পড়ালেখাও ইন্টারনেট ভিত্তিক হয়ে যাওয়ায় ডেস্কে বসে কাজ করার প্রবণতা বেড়ে গেছে৷ ফলে শারীরিক পরিশ্রমের অভাবে বাড়ছে স্থূলতা, বাড়ছে রোগ৷ এ কারণেই বিভিন্ন অফিসে এখন দেখা মিলছে ট্রেডমিল ডেস্ক, ডেস্ক সাইকেল বা এক্সারসাইজ বলের৷ […]

রোগের নাম রোগী সেরে ওঠায় ভূমিকা রাখে

নামে কিইবা আসে যায়।কালো ছেলের নাম নাকি সুন্দর আলী হতে বাধা নেই। তবে রোগের নাম রাখার ক্ষেত্রে বিষয়টা একেবারেই ভিন্ন। চিন্তাভাবনা করেই রোগের নাম রাখা উচিত। কেননা রোগের নাম রোগী সেরে ওঠার ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা রাখে। রোগের নাম […]

বর্তমান পৃষ্ঠা ৯১০

রোগের নাম রোগী সেরে ওঠায় ভূমিকা রাখে

নামে কিইবা আসে যায়।কালো ছেলের নাম নাকি সুন্দর আলী হতে বাধা নেই। তবে রোগের নাম রাখার ক্ষেত্রে বিষয়টা একেবারেই ভিন্ন। চিন্তাভাবনা করেই রোগের নাম রাখা উচিত। কেননা রোগের নাম রোগী সেরে ওঠার ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা রাখে। রোগের নাম খারাপ হলে, রোগীর সেরে ওঠার ক্ষেত্রে সেটা বাধা হয়ে দাঁড়ায়। এমনটাই জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞেরা।

কিছু রোগের নামই খারাপ হয়। কিছু নাম রাখা হয় দেশ বা ব্যক্তির নামে। কখনো বা সম্প্রদায়ের নামেও রাখা হয় রোগের নাম। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ বিষয়গুলো রোগ নিরাময়ে বেশ বড় একটা ভূমিকা রাখে। শুধু তাই নয়, অনেক সময় রোগের লক্ষণ বা ভাইরাসের নামও ব্যক্তি বা স্থানের নামে রাখা হয়।
২০০৯ সালে বিশ্বব্যাপী এইচওয়ানএনওয়ান ভাইরাস মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়েছিল। যার নাম দেয়া হয়েছিল মেক্সিকান স্নোয়াইন ফ্লু। আবার চার্লস ডিকেন্সের উপন্যাসের স্থূলাকার চরিত্রের নামে ওবিসিটি হাইপোভেন্টিলেশন সিনড্রোমের নাম দেয়া হয়েছিল পিকউইকিয়ান সিনড্রোম।
সম্প্রতি সবচেয়ে বেশি আলোচিত যে রোগটি তা হলো মিডল ইস্ট রেসপিরেটরি সিনড্রোম করোনাভাইরাস বা এমইআরএস-সিওভি। ২০১২ সালের পর থেকে এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে ১৩০ জন সংক্রমিত হয়েছে। মারা গেছে ৫৮ জন। সৌদি আরব, তিউনিশিয়া, জর্ডান, কাতার আর সংযুক্ত আরব আমিরাতে এই রোগ দেখা দিয়েছে। একজন সৌদি রোগীর দেহে মিশরের এক চিকিৎসক সর্বপ্রথম এই ভাইরাসের সন্ধান পান। তাই এর নাম দেয়া হয় মধ্যপ্রাচ্যের নামে।
নেদারল্যান্ডসের ইরাসমাস মেডিকেল সেন্টারের শীর্ষ বিজ্ঞানী রন ফুশার জানালেন, সৌদি কর্তৃপক্ষ এই নামে খুশি হননি। তাই কোনো ধরনের স্পর্শকাতরতা এড়াতে এর নাম পরিবর্তন করে এইচসিওসি-ইএমসি রাখা হয়েছে বলে বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানিয়েছেন তিনি।
এরপরও কর্তৃপক্ষ সন্তুষ্ট না হওয়ায়, নাম রাখা হয়েছে এমইআরএস-সিওভি। এ বছরের মে মাসে এই নাম অনুমোদন করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং হুঁশিয়ার করে দিয়েছে কোনো এলাকা বা অঞ্চলের নামে যেন কোনো ভাইরাসের নাম রাখা না হয়।
যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল লাইব্রেরি অফ মেডিসিনের বিশেষজ্ঞ স্টিফেনি মরিসন এএফপিকে জানিয়েছেন, নাম রাখার বিষয়ে মতানৈক্য হলে ঝামেলা হয়। এ কারণে বেশ কিছু রোগের খারাপ নাম আজ হারিয়ে গেছে। যেমন হাইতি, হোমোসেক্সুয়াল, হেমোফিলিয়াক্স এবং হেরোইন-এই চারটির কথা মাথায় রেখে এইচআইভি এইডস-এর আগের নাম ছিল ফোর এইচ। এরপর ১৯৮২ সালে গে-রিলেটেড ইমিউনো ডেফিশিয়েন্সির নামে জিআরআইডি রাখা হলেও খুব শিগগিরই তাও বাতিল হয়।
এমনকি আবিষ্কারকদের নামেও সবসময় রোগের নাম রাখা হয় না, যেমন জার্মান সায়কিয়াট্রিস্টের নামে আলজাইমারের নাম রাখা হয়েছে।
২০০৯ সালে ভারতের রাজধানী নতুন দিল্লিতে ভয়াবহ আকারে ছড়িয়ে পড়ে সুপারবাগ। এর এনজাইমের নাম রাখা হয়েছিল নিউ দিল্লি মেটালো-ল্যাকটামেস-ওয়ান বা এনডিএম ওয়ান। ২০০৭ সালে ভারত সফরের সময় সুইডেনের এক নাগরিক এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় এই নাম রাখা হয়েছিল।
এরপর পুরো বিশ্বে সুপারবাগ ছড়িয়ে পড়লে ভারতের বিশেষজ্ঞ এবং পার্লামেন্ট সদস্যরা এই নাম পরিবর্তনের দাবি জানান। তবে এখনও পর্যন্ত এই নামেই বহাল আছে ভাইরাসটি।
রোগের নাম খারাপ হলে তা নিরাময়ে যে বড় ভূমিকা রাখে তার উদাহরণ হলো কিমবি নামে ২৭ বছরের এক তরুণী, যিনি হালেরফোরডেন-স্পাৎস নামে এক রোগে আক্রান্ত। এই রোগটির নাম রাখা হয়েছে একজন নাৎসি চিকিৎসকের নামে। ১০ বছর আগে কিমবির মা এই নাম পরিবর্তনের জন্য আদালতের শরণাপন্ন হন।
তার ধারণা, নামের কারণেই তার মেয়ে এই রোগ থেকে সেরে ওঠার কোনো চেষ্টা করছে না। গবেষণায় দেখা গেছে ৯০ এর দশকের পর হালেরফোরডেন-স্পাৎস নামটি আর ব্যবহার করা হচ্ছে না।
আর নামটা যদি ভালো হয়, তবে রোগ নিরাময় হয় তাড়াতাড়ি। যেমন হেনরি ভি সাইন। শেক্সপিয়ারের হেনরি ভি-এর নামে রোগের লক্ষণের নাম রাখা হয়েছে। ইউনিভার্সিটি কলেজ ক্রকের মেডিসিন বিভাগের প্রধান ফার্গুস শানাহান জানিয়েছেন, এই নামটা রোগ থেকে সেরে উঠার ব্যাপারে কাজ করে, কারণ বেশিরভাগ রোগী শেক্সপিয়ার নামটির সঙ্গে পরিচিত।