Best Reseller Hosting Service in BD
আমি একজন অদৃশ্য মানব। কোন কিছু ভালো লাগলে সবার সাথে শেয়ার করি। এটাই আমার শখ। ভালো থাকবেন আর আমার জন্য দোআ করবেন।
মোট পোস্ট সংখ্যা: 105  »  মোট কমেন্টস: 20  
Facebook
Google Plus
Twitter
Linkedin

ল্যাপটপের যত্নে জেনে নিন অসাধারণ কিছু টিপস

laptoppp tipsল্যাপটপ খুবই স্পর্শকাতর যন্ত্র। তাই এর নিয়মিত যত্ন আত্তি প্রয়োজন। নিচে ল্যাপটপের যত্নে সাধারণ কিছু টিপস  দিলাম। আশা করি কাজে লাগবে…….

১. ধুলোবালিকে না : ধুলোবালি ল্যাপটপের প্রধান শত্রু। চেসিস ও ফ্যানে ধুলো জমে ল্যাপটপের কার্যকারিতা কমিয়ে দেয়। এতে যন্ত্রাংশ দ্রুত গরম হয়ে যায়। তাই নিয়ম করে ঝেড়ে-মুছে রাখুন। ব্যবহারের পর ব্যাগে ঢুকিয়ে রাখুন। বাজারে ল্যাপটপের উপযোগী স্ক্রিন প্রোটেক্টর, কিবোর্ড প্রোটেক্টর ও মিনি ভ্যাকুয়াম ক্লিনার পাওয়া যায়। এছাড়া ধুলোবালি পরিষ্কার করতে ক্যানড কম্প্রেসড এয়ার ব্যবহার করতে পারেন।

২. পরিষ্কারের সঠিক টুলস : ঘর পরিষ্কারের জন্য আমরা অনেক কিছু ব্যবহার করে থাকি। অনেকে একই জিনিস ব্যবহার করেন ল্যাপটপ ও পিসি পরিষ্কারে। এটা ঠিক নয়। ল্যাপটপ খুবই স্পর্শকাতর। বিশেষ করে এর স্ক্রিন ও টার্চ প্যাড। উপযুক্ত উপাদান ব্যবহার করা না হলে এগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই পরিষ্কারের সময় ল্যাপটপের উপযোগী স্ক্রিন ক্লিনার, স্প্রে ও কাপড় ব্যবহার করুন।

e-HostBD Hosting Service

৩. ঠাণ্ডা রাখুন : ল্যাপটপ অনেক বেশি তাপ উৎপন্ন করে, যা অনেক সময় ক্ষতিকারকও হতে পারে। ল্যাপটপ ঠাণ্ডা রাখতে বাজারে নানা দামের কুলার পাওয়া যায়। এ ছাড়া সবসময় সূর্যালোক, হিটার বা রেডিয়েটর থেকে দূরে রাখুন।

৪. কানেক্টর ব্যবহারে সাবধানতা : ল্যাপটপের চারপাশে অনেক সকেট থাকে। এগুলো সাধারণত ইউএসবি, অডিও ও নেটওয়ার্ক কানেক্টর হিসেবে ব্যবহৃত হয়। যে কোনো ধরনের কানেক্টর ব্যবহারে সাবধানতা দরকার। অনেক সময় বেশি চাপ দিয়ে কানেক্টর ঢুকাতে গেলে সকেট ক্ষতিগ্রস্ত হয়।ল্যাপটপের যত্নে সাধারণ কিছু টিপস ৫০০x২৯৫ ল্যাপটপের যত্নে সাধারণ কিছু টিপস কিন্তু কাজে আসবে অসাধারণ

৫. ধূমপান নিষেধ : ধূমপানে আপনি যে ধরনের রসায়ন গ্রহণ করেন, ল্যাপটপও তা গ্রহণ করে। তাই ধূমপান ল্যাপটপের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। এর থেকে সৃষ্ট ধোঁয়া ও ধুলো ল্যাপটপের ক্ষতি করে।

৬. রান্নাঘর থেকে দূরে : রান্নাঘর থেকে ল্যাপটপ দূরে রাখুন। নিকোটিনে যে ধরনের সমস্যা, একই ধরনের সমস্যা রান্নাঘরেও। এ ছাড়া রান্নাঘরের বাতাসে প্রচুর জলীয় বাস্প ও চর্বি থাকে, যা ল্যাপটপের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। যারা রান্নাঘরে বসে কাজ করতে পছন্দ করেন বা করেত বাধ্য- তাদের উচিত এয়ার ভেন্টস ও ফ্যানের ব্যবস্থা করা। তবে সহজ সমাধান হলো রান্নাঘরে ল্যাপটপ নিয়ে না যাওয়া।

৭. পাওয়ার সকেটের প্রতিরক্ষা : অনেকে ল্যাপটপের পাওয়ার সকেট নিয়ে যত্নবান নন। ব্যবহারের পর যেমন তেমনভাবে ঝটকা মেরে কেবলটি খুলে নেন। এটা ঠিক নয়। এটি যত্নের সঙ্গে ব্যবহার করুন। কেবল ও কানেক্টর পরিষ্কার রাখুন। চার্জ দেওয়ার সময় ফ্লোরের উপর ছড়িয়ে রাখবেন না। চেষ্টা করুন যাতে এর বেশির ভাগ অংশ টেবিলের উপর থাকে। তা না হলে অনেক সময় টান লেগে ল্যাপটপ পড়ে যেতে পারে।

৮. ভাইরাসের প্রবেশ নিষেধ : বাহ্যিকভাবে আমরা নানা ধরনের যত্নআত্তি নিতে পারি। কিন্তু ভেতরে কী করব? এর প্রথম সূত্র হলো সবসময় ল্যাপটপকে ভাইরাসমুক্ত রাখা। অপ্রয়োজনীয় ফাইল ডাউনলোড ও ইউএসবি ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করুন। প্রয়োজন না হলে ব্লুটুথ ও ওয়াইফাই বন্ধ রাখুন। সব সময় হালনাগাদ অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করুন।

৯. ব্যাকআপ ফাইল : আপনার প্রয়োজনীয় ফাইল ও সফটওয়্যারের ব্যাকআপ রাখুন। দরকার হলে সিডি, ডিভিডি বা এক্সটার্নাল হার্ড ড্রাইভ ব্যবহার করুন।

১০. হাইবারনেট চালু করতে পারেন : শাটডাউন ও স্লিপের বদলে হাইবারনেট অপশন ব্যবহার করুন, যা আপনার সে মুহূর্তের কাজগুলো একটি ফাইলে জমা রেখে আপনাকে এমন একটি অবস্থায় নিয়ে যাবে, যা প্রায় বিদ্যুৎ ব্যবহার না করারই সমান। পরবর্তী সময়ে সিস্টেম রিজিউম করলে আপনার সকল কাজ আগের জায়গা থেকে করতে পারবেন।

১১. সিডি ও ডিভিডির ব্যবহার : সব সময় হার্ডডিস্ক থেকে মুভি ও গান চালানোর চেষ্টা করবেন। এতে ডিভিডি রমে চাপ কম পড়ে ও বিদ্যুৎ খরচ কম হয়।






eHostBD Hosting

মন্তব্য

মন্তব্য করুন