Best Reseller Hosting Service in BD

আপনারা দেখছেন "স্বাস্থ্য বিষয়ক" এর অন্তর্ভুক্ত পোস্টসমূহ

ব্লক হয়ে যাওয়া ধমনী খুলতে সহায়তা করবে বেদানার রস

ব্লক হয়ে যাওয়া ধমনী খুলতে সহায়তা করবে বেদানার রস

“করোনারি আর্টারি ডিজিজ” যাকে আমরা সাধারণত হৃদপিণ্ডের ধমনী ব্লক হয়ে যাওয়া হিসেবেই বুঝে থাকি, নিঃসন্দেহে অনেক মারাত্মক একটি সমস্যা। এই সমস্যার কারণে হার্ট-অ্যাটাক হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায় যার ফলে বাইপাস সার্জারির প্রয়োজন হয়। এই রোগটি মূলত অতিরিক্ত কলেস্টোরল […]

যে দশটি খাবারের কারণে হতে পারে মরণ ব্যাধি ক্যান্সার

মানুষের মৌলিক চাহিদার মাঝে অন্যতম একটি হল খাদ্য। বাঁচার প্রয়োজনে আমাদের প্রতিদিনই খাদ্য গ্রহন করতে হয়। শুনে অবাক হবেন, প্রতিদিন গ্রহন করা এসব খাদ্যের মাঝেই দশটি খাবার রয়েছে যা আপনার শরীরে ক্যান্সারের মত ভয়াবহ রোগ সৃষ্টির জন্য দায়ী […]

কোন ধরনের কলা আপনার স্বাস্থ্যের জন্য ভালো ? জেনে নিন

banana-Anytech Tune

কলা তো রোজই খাওয়া হয়, কিন্তু কখনো ভেবেছেন কী যে কোন কলাটি বা কেমন কলা আপনার স্বাস্থ্যের জন্য ভালো? কলা কেনার সময় আমরা সকলেই দাগবিহীন, পরিষ্কার খোসা দেখে কলা কেনার চেষ্টা করি। ভেতরে একটু নরম হয়ে গেলেই কলা […]

চুল পাকা প্রতিরোধে সাহায্য করে যে ৫টি খাবার

চুল পাকা প্রতিরোধে জরুরি ৫টি খাবার

চুল কি শুধু  বয়সের কারণেই পাকে? না, চুল ধূসর বা সাদা হয়ে যাওয়ার অন্তরালে রয়েছে আরও অনেক কারণ। অনেককেই দেখবেন অল্প বয়সেই চুল ধূসর হয়ে গিয়েছে, আবার অনেকের বয়স হওয়া সত্ত্বেও চুলে পাক ধরেনি।  এর পেছনে জিনগত কারণ […]

ঠান্ডা পানিতে গোসল করার উপকারিতাগুলো জেনে নিন

ঠান্ডা পানিতে গোসল করার ৭ উপকারিতা-AnytechTune

ঠান্ডা পানিতে গোসল করলে শুধুমাত্র ফ্রেশ হওয়া নয়, সঙ্গে মিলবে অনেক শারীরিক সমস্যার সমাধান ৷ আসুন দেখে নেওয়া যাক কি কি উপকারিতা আছে ঠান্ডা পানির গোসলের উপকারিতা ৷ ঠান্ডা পানিতে গোসলের উপকারিতা: ১. দেহের রক্ত প্রবাহমাত্রা বাড়িয়ে দেয়:  […]

চোখকে ভালো রাখতে অবশ্যই মনে রাখতে হবে নিছের বিষয় গুলো

চোখকে ভালো রাখতে মনে রাখতে হবে নিছের বিষয় গুলো-AnytechTune

যখন কবি কবি ভাব নিয়ে উদাস নয়নে প্রকৃতির দিকে তাকিয়ে থাকি তখন আমাদের কাছে আমাদের চোখজোড়াই সবচাইতে বেশি মূল্যবান কিছু বলে মনে হতে থাকে। কিন্তু আমরা সত্যিকার অর্থেই চোখের ব্যাপারে অনেক বেশি উদাসীন। একেবারে প্রয়োজন বোধ না করলে […]

বাচ্চাদের স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধিতে যে সব খাবার গুলো নিয়মিত তাদের দেয়া উচিত

বাচ্চাদের স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধিতে সহায়ক যে খাবার গুলো

সন্তান হওয়ার পর তাঁদের মেধাবিকাশ নিয়ে সকল বাবা-মাই খুব চিন্তিত থাকেন। কিন্তু শুধু চিন্তা করলেই হবে না, বাচ্চার মেধাবিকাশের পাশাপাশি স্মৃতিশক্তিও যেন ভালো হয় সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে। তাই আজ জেনে রাখুন এমনই কিছু খাবার সম্পর্কে যা বাচ্চাদের […]

উঁকুন থেকে মুক্তি পেতে

অনেকের চুলে খুশকী নেই, চুলও সুন্দর তবুও সারাক্ষণ মাথা চুলকায়। যারা উঁকুনের সমস্যায় ভূগছেন তারা এতক্ষণে নিশ্চই বুঝে গেছেন। আসলে যাদের প্রতিদিন অনেক মানুষের সাথে চলাফেরা করতে হয়, তারা উঁকুনের সমস্যাটা ভালভাবেই টের পান। আবার অনেকের মাথায় ছোটবেলা […]

আমরা যে প্রতিনিয়ত ভিটামিন ট্যাবলেট খাই কিন্তু কয়জন জানি শরীরের উপর এর প্রভাব

ভিটামিন শরীরের জন্য ভালো - এটা সবাই জানে। কিন্তু এর আবার মন্দ দিক? হ্যাঁ, সেটাও আছে বৈ কি! ভিটামিন খাওয়ার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে আজকাল অনেকেই বেশ সচেতন। আসলে অধিকাংশ প্রকৃতিজাত খাদ্যবস্তুকে আমরা নানাভাবে শোধিত বা process করে, সংরক্ষণের জন্য জীবাণুনাশক রাসায়নিক পদার্থ যোগ করে, খাদ্যগত স্বাভাবিক ভিটামিনগুলোকে বহুলাংশে নষ্ট করে ফেলি। এ কারণেই ক্ষতিপূরণ হিসেবে অনেক সময় ভিটামিন সাপ্লিমেন্ট খাওয়ার প্রয়োজন হয়। কিন্তু ক্ষতিপূরণের চিন্তায় না গিয়ে শুধু স্বাস্থ্যের উন্নতি হবে ভেবে আজকাল অনেকেই সাপ্লিমেন্ট হিসেবে ভিটামিন খান মুড়ি-মুড়কির মতো করে। বিশেষ করে বি, সি এবং ই - এসব ভিটামিনগুলো। কিন্তু দেহের ভিটামিনের চাহিদা মেটানোর ব্যবস্থা করা উচিত খাদ্যের মাধ্যমে, 'ভিটামিন সাপ্লিমেন্ট' গ্রহণের মাধ্যমে নয়। কেননা এতে উপকারের চেয়ে ক্ষতিই বেশি হয়। ভিটামিন বি মেশিনে ছাঁটা অতিরিক্ত শোধিত চাল বাদ দিয়ে কম ছাঁটা চালের ভাত আর তার সাথে তুষযুক্ত আটার রুটি পরিমাণমতো খেলে প্রয়োজনীয় ভিটামিন বি স্বাভাবিকভাবেই পাওয়া যায়। কিন্তু অতিরিক্ত পরিমাণে 'বি-কমপ্লেক্স' গোষ্ঠীভুক্ত ভিটামিন সাপ্লিমেন্ট খেলে, বিশেষ করে ভিটামিন বি-১ খেলে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে দেখা দিতে পারে অ্যালার্জি। আবার অতিরিক্ত ভিটামিন বি-২ বা নিয়াসিন খেলে শুরু হতে পারে মাথাধরা, বমি বমি ভাব ইত্যাদি। ভিটামিন সি মানুষ নিজদেহে ভিটামিন সি তৈরি করতে পারে না। তাই আলাদাভাবে এই ভিটামিন সি গ্রহণের প্রয়োজন হয়। এটা জেনে অনেকে ভাবেন যে শুধু খাদ্যের মাধ্যমে নয়, সাপ্লিমেন্ট হিসেবেও প্রচুর পরিমাণে বাড়তি ভিটামিন সি খাওয়া প্রয়োজন। কিন্তু ভিটামিন সি-এর দৈনিক প্রয়োজন যা তা ১ টুকরো পেয়ারা বা ১টি লেবু অথবা ২টি টমেটো কিংবা ১টা বড় কমলালেবু থেকেই পাওয়া যেতে পারে। অতিরিক্ত সিন্থেটিক ভিটামিন সি খাওয়া আবার স্বাস্থ্যের জন্য বিপদজনক। কারণ এতে নষ্ট হয়ে যায় শরীরে অন্যান্য ভিটামিন এবং খনিজ লবণের ভারসাম্য। তাছাড়া সিন্থেটিক ভিটামিন সি দীর্ঘদিন গ্রহণ করলে দেখা দিতে পারে স্কার্ভি রোগ, মেয়েদের অকাল রজঃস্রাব এবং অনেক ক্ষেত্রে বাতের আক্রমণ। ভিটামিন সি ঠাণ্ডা লাগা প্রতিরোধ করতে পারে, এমনকি ঠাণ্ডা লেগে গেলে তার স্থায়িত্বের সময়ও কমিয়ে দিতে পারে। কিন্তু প্রতিদিন ১০০ থেকে ২০০ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি-তেই এ কাজ সম্ভব। তাই যাদের খাদ্যে ভিটামিন সি-এর মারাত্মক অভাব তারা ওই ১০০ থেকে ২০০ মিলিগ্রাম সিন্থেটিক ভিটামিন সি খেতে পারেন। কিন্তু এজন্য একবারে একগাদা ভিটামিন সি খাওয়া কোনোমতেই ঠিক নয়। ভিটামিন ই ভিটামিন ই পাওয়া যায় প্রচলিত সবরকম খাদ্যে। বিশেষ করে শস্যদানা এবং শাকপাতায়। বিজ্ঞাপনে বিশ্বাস করে অনেকেই মনে করেন যে, সিন্থেটিক ভিটামিন ই যৌনশক্তি বাড়িয়ে দেয়, জরা প্রতিরোধ করে এবং হৃদরোগ হতে দেয় না। এগুলোর সত্যতা নিয়ে সন্দেহের অবকাশ রয়েছে যথেষ্টই। প্রকৃতপক্ষে ভিটামিন ই-এর অভাব ঘটেছে এরকম রোগীর খবর নেই বললেই চলে। কারণ একে তো এই ভিটামিন সাধারণ খাদ্যের মধ্যে যথেষ্টই আছে, তাছাড়া আমাদের দেহে এই ভিটামিন সঞ্চিতও থাকতে পারে দীর্ঘদিন ধরে। - See more at: http://www.priyo.com/2014/12/29/125726.html#sthash.NTfmjkXz.dpuf

ভিটামিন শরীরের জন্য ভালো – এটা সবাই জানে। কিন্তু এর আবার মন্দ দিক? হ্যাঁ, সেটাও আছে বৈ কি! ভিটামিন খাওয়ার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে আজকাল অনেকেই বেশ সচেতন। আসলে অধিকাংশ প্রকৃতিজাত খাদ্যবস্তুকে আমরা নানাভাবে শোধিত বা process করে, সংরক্ষণের জন্য […]

শীতে শরীরে উষ্ণতা ধরে রাখতে সাহায্য করে যে ৭ টি সুস্বাদু খাবার

উষ্ণতা ধরে রাখার উপকারি খাবার তালিকা

হুট করেই শীতটা যেন জাঁকিয়ে বসেছে। শীতকাল আসতে না আসতেই হাড় কাঁপানো শীত মনে হচ্ছে। বাইরে বেরুলে ইদানীং শীতের কাপড় গায়ে জড়িয়েই বের হতে হয়। কিন্তু ভেবেছেন কি ,এখনই এই অবস্থা হলে শীতের মাঝামাঝি সময়ে কী অবস্থা হবে? […]

চিকিৎসা বিজ্ঞানে ২০১৪ সালের সেরা ১০টি আবিষ্কার !

চিকিৎসা বিজ্ঞানে ২০১৪ সালের সেরা ১০টি আবিষ্কার !

ক্লেভ ল্যান্ড ক্লিনিক হচ্ছে পৃথিবীর অন্যতম বিখ্যাত হসপিটাল যারা কিনা সব সময় চিকিৎসা বিজ্ঞানের জন্য নতুন নতুন প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করার চেষ্টা করেছেন বা আবিষ্কার করেছে। এবারের ২০১৪ সালের মেডিক্যাল ইনভেশন সামিটে সর্বমোট ১১০ জন অভিজ্ঞ বেক্তির একটি […]

১০ টি শারীরিক সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে প্রতিদিন ১ গ্লাস গাজরের জুস খান

গাজরের জুস

অনেকেই গাজর খেতে একেবারেই পছন্দ করেন না। কিন্তু গাজরের রয়েছে নানা ধরণের পুষ্টিগুণ। আমাদের দেহের সুস্থতায় গাজর অনেক বেশি কার্যকরী। তাই প্রতিদিন গাজর খাওয়া উচতি সকলের। আর যদি গাজর একেবারেই খেতে না পারেন তবে খাদ্যতালিকায় রাখতে পারেন ১ […]

সুস্থ থাকার জন্য দৈনিক কতটুকু ঘুমের দরকার !

প্রতিটি মানুষের সুস্থ থাকার জন্য সঠিক বা পর্যাপ্ত পরিমানে ঘুমের প্রয়োজন। আমাদের মদ্ধে অনেকেই মনে করে যে দৈনিক ৮ ঘণ্টা ঘুম যথেষ্ট। আসলে কি তাই বিজ্ঞান কি বলে? আজকে ঘুম নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো। বয়স ভেদে ঘুমনোর সময় […]


সুস্থ থাকার জন্য দৈনিক কতটুকু ঘুমের দরকার !

প্রতিটি মানুষের সুস্থ থাকার জন্য সঠিক বা পর্যাপ্ত পরিমানে ঘুমের প্রয়োজন। আমাদের মদ্ধে অনেকেই মনে করে যে দৈনিক ৮ ঘণ্টা ঘুম যথেষ্ট। আসলে কি তাই বিজ্ঞান কি বলে? আজকে ঘুম নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো।

দৈনিক কতটুকু ঘুমের দরকার

বয়স ভেদে ঘুমনোর সময় পরিবর্তন হয়ে থাকে।  যেমন একজন গর্ভবতী মায়ের গর্ভধারনের প্রথম তিন মাস প্রয়োজন স্বাভাবিকের তুলনায় ২ ঘণ্টা বারতি ঘুমের। টিন এজার যারা আছে তাদের প্রয়োজন দৈনিক ৯ ঘণ্টা। আর প্রাপ্ত বয়স্ক যারা আছেন তাদের দরকার ৭ থেকে ৮ ঘণ্টার। এখানে সময় বিচার না করলে বলা যেতে পারে একজন মানুষ স্বাভাবিক বা নিরবিছিন্ন ভাবে যতটুকু ঘুমবে তার জন্নে সেটি যথেষ্ট। বিজ্ঞানীরা মানুষের ঘুমের অপর অনেকরকম গবেষণা চালিয়েছে এবং একটি পরিসংখ্যান প্রকাশ করেছে, যেটি নিম্নরূপ-

  • নবজাতক শিশু ০-২ মাস দৈনিক — ১২-১৮ ঘণ্টা।
  • নবজাতক ৩-১১ মাস দৈনিক — ১৪-১৫ ঘণ্টা।
  • ১-৩ বছরের বাচ্চা — দৈনিক ১২-১৪ ঘণ্টা।
  • ৩ থেকে ৫ বছরের শিশু দৈনিক — ১১-১৩ ঘণ্টা।
  • ৫ থেকে ১০ বছর বাচ্চা দৈনিক — ১০-১১ ঘণ্টা।
  • কিশোর বয়স বা টিন এজার যাদের বয়স ১১-১৭ বছরের মদ্ধে তাদের জন্য দৈনিক ৮.৫-৯.৫ ঘণ্টা।
  • পূর্ণবয়স্ক বা যাদের বয়স ১৮ এর বেশী তাদের জন্য দরকার দৈনিক ৭-৯ ঘণ্টা ঘুমের।

দৈনিক কতটুকু ঘুমের দরকার

অনেকেরি পেশা এমন যে ইচ্ছা করলেই পর্যাপ্ত ঘুমনো সম্ভব হয়না। এক্ষেত্রে চেষ্টা করা উচিৎ দিনের অন্য সময় সেই বাকি পরা ঘুম পুষিয়ে নেয়া। গবেশনায় আরও দেখা গিয়েছে যাদের পর্যাপ্ত ঘুম হয়না তাঁরা প্রাই সময় কোন না কোন শারীরিক সমস্যায় ভোগ যেমন মাথা ব্যাথা করা অবসাদ, কাজ করতে গেলে শরিরে বল না পাওয়া, এমনকি গাড়ি চালানোর সময় মারাত্মক দুর্ঘটনার কারন এই অপর্যাপ্ত ঘুম।

দৈনিক কতটুকু ঘুমের দরকার

স্বাভাবিক ঘুমের জন্য আপনার যা করা প্রয়োজন-

প্রতিদিন রাত্রে ঠিক একই সময় ঘুমোতে যাবেন। যদি সম্ভব হয় তবে একটু আগে আগে যাবার চেষ্টা করবেন। ঘুমোতে যাবার আগে চা, কফি তথা ক্যাফেইন যুক্ত খাবার ও পেট ভরে খাওয়া থেকে বিরত থাকবেন। আপনার বেডরুম থেকে টিভি বের করে অন্য রুমে রাখুন। রাত্রে ঘুমোতে যাবার আগে টিভি দেখবেন না সাথে সাথে সব ধরনের ইলেক্ট্রনিক্স যন্ত্র যেমন মোবাইল ফোন ল্যাপটপ ইত্যাদি ব্যাবহার করবেন না। যতদূর সম্ভব পাতলা জামা কাপড় পরে ঘুমোতে যাবেন। টাইট কারপ পরে ঘুমোতে গেলে আপনার শরীরের রক্ত চলাচল স্বাভাবিকের তুলনাই বাধাপ্রাপ্ত হবে এবং ঠিক মতো ঘুম হবে না।

বিস্তারিত আরও জানতে এখানে যেতে পারেন।

লিখাটি সর্বপ্রথম এখানে পোষ্ট হয়েছে। ইচ্ছা করলে ঘুরে আসতে পারেন আমাদের ব্লগ থেকে।

e-HostBD Hosting Service